অতঃপর নির্যাতনের বর্ণনা দিলেন সাংবাদিক সনেট:উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন

উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনে প্রকাশিত সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 স্টাফ রিপোর্টার,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন ::- সহ কর্মীগন, ভাই, বন্ধুরা, আসালামুয়ালাইকুম,

 
আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমি সনেট আপনাদের ছোট ভাই, বন্ধু, আপনাদের সন্তান।কোন মাদকসহ আটক হয়নি আপনাদের সনেট। পুলিশের এসআই এর ব্যক্তিগত রাগে ও তার বিরুদ্ধে সংবাদ করার জেরে কিছু সাংঙ্ঘাতিক, দালাল চক্রান্ত করে এমন হয়রানির শিকার আমি পুঠিয়া থানার এসআই পারভেজ হাতে।
 
কষ্টের বিষয় চক্রান্তের শিকার আমি সনেট কি ভাবে..রাজশাহী পুঠিয়া থানা পুলিশের এসআই পারভেজের ব্যক্তিগত শত্রুতা ও কিছু দালাল সাংবাদিকেরা চড়ম বিরোধিতা করেছে আমার তাই বিনা অপরাধে আমাকে ফাঁসিয়েছে। বিরোধী তা করার কারন আমি অতিতে ছাত্র রাজনীতি করেছি।
 
ঘটনাটি,, গত দুই তারিখ রাত সাড়ে ১০ টার দিকে বানেশ্বর মোড়ে দুইটি মটোরসাইকেলে ৫ জন মোড়ে পৌঁছালে পুলিশ থামার জন্য সিগনাল দিলে আমরা ভালোভাবে দাড়িয়ে পরিচয় দিলে এক পুলিশ তার মুঠোফোনে এসআই কে বলে সাংবাদিক সনেট কে পেয়েছি স্যার। ওই পুলিশ কে বলি আমি.. কে স্যার আমি কথা বলি।
সে পরিচিত হওয়ার কারনে বলি আচ্ছা আপনার স্যার আসুখ। এর মধ্যে দুটি টেলিফোন আসে একজন বলে পারভেজ হেরোইন ধরেছে দেন দরবার চলছে। আমি দেখছি বলে লাইন কেটে দেই। একটু পরে রাজশাহীর বন্ধুবর এক টিভি সাংবাদিক খোঁজ করে কই তুই, আমি বলি বানেশ্বর মোড়ে। একটু পরে এসআই পারভেজ হাজির। মাতাল হয়ে আমাকে চিনেও না চিনার ভান করে। আর অন্য দের সাথে খারাপ আচরন করতে থাকে। তার গালা গালি খারাপ আচরণ দেখে আমার স্মার্ট ফোনে রেকর্ড দিয়ে তাকে বলি এমন করছেন কেন।
এ কথা শুনে আমার উপরে চড়াও হয়। সবার মোবাইল কেড়ে নেয়। সবাই কে গাড়িতে তুলে অন্ধকারে নিয়ে গিয়ে আটকে রাখে । পরে রাত ২টার দিকে গাড়িতে করে পুঠিয়া স্বাস্থ কমপ্লেক্স এ নিয়ে গিয়ে সেখানে থাকা ডাক্তার কে বলে এরা মাদক সেবন করেছে। কোন টেস্ট ছাড়া ডাক্তার এমসি কাগজ দেই এসআই কে। পরে থানায় নিয়ে এসে মদ সেবনের (২৬) ধারায় মামলা দেয়।
৩ তারিখ সকাল থেকে কিছু দালাল সাংঙ্ঘাতিকরা ওসি কে, ফোন করে একের পর একে তারা সবাই বলে মামলা দেন সনেট কে। যা হয় আমরা দেখবো। আমার সামনে ওসিকে ফোন দেই মাগির দালাল হিসাবে পরিচিত এক টিভি সাংঙ্ঘাতিক । এসআই পরিচয় দেয় দালাল সংঙ্ঘাতিক না কি ওর মামা হয়। এর পরে দালাল কিছু মানুষ রুপি ইবলিশ শয়তান ফেসবুকে পোস্ট করে আমি না কি হেরোইন সহ আটক হইছি। এমনকি এশিয়ান টিভির অফিসে ফোন দিয়ে বলে আমি না কি হেরোইন সহ আটক। এর পরে কিছু দালাল সাংঙ্ঘাতিক অতি আনন্দিত হয়ে নিউজ করে আমি নাকি মাদক সেবন করতে গিয়ে আটক। ফোনে একমিনিট কথা বলতে দেই নি।
উত্তর দেন কি ক্ষতি করেছি,? কি অন্যায় করেছি আমি..? কার কাছে বিচার চাইবো বলেন আপনারা.?? কি করা উচিত চক্রান্ত কারি দের। অপেক্ষায় আছি মানুষ রুপি শয়তান দের বিচার হবে একদিন।
 
আরেকটা বিষয়, আমি রাজশাহী মহানগর ছাত্র লীগের সহ- সম্পাদক সাবেক তাই কিছু সাংবাদিকরা বেশি আনন্দিত হয়ে অফিসে ফোন দিয়ে আমার বিরুদ্ধে বলেছে, হেরোইন নিয়ে ধরেছে পুলিশ আমাকে। মিথ্যা বলেছে টিভি থেকে বাদ দেয়ার জন্য । এমন বিপদে যদি সাংবাদিকরা এমন করে কি করবো বলেন। চড়ম শাস্তি পাবে একদিন ওই মুখোশ পরা দালাল দের। বিচার আপনাদের ও আল্লাহ্ কাছে দিলাম..আমি আছি, থাকবো আপনাদের মাঝে দোয়া করবেন শুধু আমার জন্য।

…………………………………………………………………………………………. ……………………………………..
 বি: দ্র:: আপনাদের যে কোনো দুঃখ-দুর্দশার সংবাদ জানাতে পারেন আমাদের, আমাদের সাহসী টিম চলে যাবে আপনার দ্বার প্রান্তে । ধন্যবাদ – প্রয়োজনে :: +৮৮০১৭১৬২০৪২৪৮ http://upnews24x7.com/ most google ranking bengali news portal from Bangladesh.


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনে প্রকাশিত সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •