চাঁপাইনবাবগঞ্জে রবি হত্যাকান্ডে ৯ দিনে জামিন পাওয়া আসামী বাদশা আরোও বেপরোয়া-পর্ব১ :উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন

উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনে প্রকাশিত সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 4.6K
  • 3.6K
  • 2.8K
  • 1.9K
  • 1.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    14K
    Shares

বিশেষ প্রতিবেদক,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন :: চাঁপাইনবাবগঞ্জ আমনুরায় নিজ পরিবারের সবাইকে মামলা দিয়ে সকল সম্পত্তির যিনি বাদশা হতে চান তার নাম
বাদশা কিন্তু কাজ একটু অন্যরকম বাদশাহী । অবশ্য মদের বাদশা তিনি । হ্যা, এবারের অনুসন্ধানে যার নাম উঠে এসেছে তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার আমনুরার বাংলা মদ ব্যবসায়ী বাদশা।

অবশ্য বেআইনিভাবে তিনি ১৬/১৭ বছর যাবত মদের ব্যবসা পরিচালনা করলেও সরাকারী লাইসেন্স করেছেন তোপের মুখে, মাত্র কিছু সময় আগে।এর মধ্যে লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হলেও নবায়ন করেননি তিনি। বিধায় জেলা প্রশাসন কয়েকবার হানা দিয়ে বিপুল পরিমান মদ সহ মদের ভাটি থেকে অসংখ্যা মাদকসেবীকেও আটক করেছেন। অবশ্য মদ বিক্রির বিরোধীতা করে প্রতিবাদ করেছিলেন তার আপন ভাই ঝিলিম ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি (৩৯)।

অন্যদিকে, প্রতিবাদ করার মাত্র কয়েক দিন পরই গত ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে খুন হন রবিউল ইসলাম রবি (৩৯)।
খুন হওয়ার কয়েকদিন আগে ফেসবুক লাইভে এসে নিজের ভাই বাদশার বিষয়ে অনৈতিক কর্মকান্ডের গোপন খবর ফাঁস করেন রবি। যে ভিডিওটেপটি এখনোও খুন হওয়া রবির ফেসবুক টাইমলাইনে আছে।

জানা যায়, বাদশারই আপন ভাই রবি।অবশ্য নিজ ভাইকে হত্যার দায়ে গ্রেফতারোও হন বাদশা।রবি হত্যা কান্ডের বিষয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানাতে ও আদালতে দিয়েছেন অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। তবুও অদৃশ্য কারনে হত্যা মামলায় জামিন পেয়ে যান ৯ দিনের মাথায়।এতেও হতবাক মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই। উক্ত হত্যা মামলাটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানায় এন্ট্রি হয় যার মামলা নং ১৭, তাং -৬/১২/২০১৯,ধারা নং – ১৪৭,১৪৮,৩২৩,৩২৪,৩২৬,৩০৭,৩০২,১১৪ ।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ভুমি জবর দখল, বিভিন্ন মামলার আসামীদের তদ্ববির,জালিয়াতি,নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী লালন পালন ছাড়াও অসংখ্যা অভিযোগ এই বাদশার বিরুদ্ধে।কথিত ক্ষমতাধর আমনূরার এই বাদশা চক্রের মদদে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে আরোও কিছু ভূমিদস্যু ও তার সহযোগী সিন্ডিকেট।

খোদ ১২ ও ১৬ বছরের আপন ২ ভাতিজাকে মিথ্যা চুরি ও সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ এনে থানায় মামলা করতে যান বাদশা। থানা মামলা না নিলে কোর্টে মামলা করেন তিনি।অবশ্য কোর্টে করা মামলায় এখনো জেল হাজতে রয়েছে তার আপন ভাতিজা শিশির ও আর পলাতক রয়েছেন তার আপন বড় ভাই মনিরুল ইসলাম ।

এদিকে একাধিক এলাকাবাসীর ধারনা – বাদশা পরিকল্পিতভাবেই আপন ভাইকে খুন করে পরবর্তীতে আরেক ভাই ও ভাতিজাকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে মৃতভাই রবির স্ত্রীকে বিয়ে করে সকল সম্পত্তির মালিক হতে চান তিনি।কেননা বাদশার আপন ভাই রবি জীবিত থাকাকালে বেশ কয়েকবার সম্পত্তির বিষয়ে ২ ভাইয়ের ভেতরে সংঘর্ষ হয়।

বিধায় অনেকেরই ধারনা রবি হত্যা মামলায় বাদশার প্ররোচনা না থাকলে বাড়ী থেকে মাত্র কয়েক গজ দূরে প্রাকাশ্য দিবালোকে কিভাবে সবার সামনে খুন হন রবি।


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনে প্রকাশিত সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 4.6K
  • 3.6K
  • 2.8K
  • 1.9K
  • 1.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    14K
    Shares