রাজশাহী বাঘমারায় বিষ পান করে গৃহবধূ থানায় হাজির:উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন

উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনে প্রকাশিত সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন: বিষপান করে নিজেই অটোভ্যানে করে বাগমারা থানায় এসে হাজির হয়েছেন এক নারী। প্রায় আট কিলোমিটার হেঁটে ও ভ্যানে করে থানায় এসে কিশোর ছেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেন তিনি। এ সময় তার মুখ থেকে বিষের গন্ধ পাওয়ার পর পুলিশ বিষয়টি টের পেয়ে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসার পর বেঁচে যান ওই নারী। তার নাম বিউটি খাতুন (৩৩)। তিনি বাগমারা উপজেলার মাড়িয়া ইউনিয়নের অনন্তপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

এই ঘটনায় পুলিশ ওই নারীর কিশোর ছেলে আবদুল বারিককে (১৪) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় এনেছে। তবে ছেলে ও স্বামীকে শায়েস্তা করতে বিউটি খাতুন এই কৌশল অবলম্বন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

পুলিশ জানায়, বিউটি খাতুনের সঙ্গে ছেলেসহ পরিবারের লোকজনের পারিবারিক বিষয় নিয়ে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। তাকে নির্যাতন করা হয়েছে বলে গত রবিবার তিনি পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে থানায় মৌখিক অভিযোগ দেন। অভিযোগ পেয়ে ওইদিনই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাননি। উল্টো পরিবারের লোকজনেরা বিউটি খাতুনের বিরুদ্ধে মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ দেন। বিষয়টি নিয়ে উভয়ের মধ্যে সমঝোতার জন্য আগামী ১ জুন বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

তবে এর আগেই সোমবার রাতে বিউটি খাতুন আগের দিনের ঘটনার জের ধরে তার ছেলে ভবানীগঞ্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র আবদুল বারিকের সঙ্গে ঝগড়া শুরু করেন। এক পর্যায়ে তিনি ঘরে ঢুকে বিষপান করেন। পরে তিনি বাড়ি থেকে কিছুদূর হেঁটে আসার পর একটি অটোভ্যান নিয়ে বাগমারায় থানায় আসেন। রাত আটটার দিকে তিনি থানায় পৌঁছে ছেলের বিরুদ্ধে মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ দেন। এ সময় পুলিশ তার সঙ্গে কথাবার্তা বলতে গিয়ে মুখ ও শরীর থেকে বিষের গন্ধ পায়। এতে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। বিউটি খাতুন বিষপান করতে পারেন বলে সন্দেহ করে তাকে পুলিশভ্যানে করে দ্রুত স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। চিকিৎসার পর তিনি এখন সুস্থ।


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনে প্রকাশিত সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •