নিজস্ব প্রতিনিধি,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন::রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি ও উত্ত্যক্তের লিখিত অভিযোগ করে দুই ছাত্রী নিরাপত্তহীনতায় ভুগছেন। নিরাপত্তা চেয়ে তারা শুক্রবার দুপুরে নগরীর মতিহার থানায় দুটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন ভুক্তভোগী ওই দুই ছাত্রী। শুক্রবার বিকেলে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্র্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, শুক্রবার বিকেলে বিশ^বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

এদিকে, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীদের দাবি, শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার পর থেকে আতঙ্কে আছেন। অভিযোগ প্রত্যাহারের জন্য চাপ দিচ্ছে। ওই শিক্ষকের পক্ষের অনেক শিক্ষার্থী এসে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। ওই শিক্ষকের অনেক ক্ষমতার কথা বলে ছাত্রত্ব বাতিলের ভয় দেখানো হচ্ছে। নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত ছাত্রীরা, শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির সম্মূখীন হবার ভয়ে তারা হল থেকে বের হতে পারছেন না।

মতিহার থানার ১১০৮ ও ১১০৯ নম্বর সাধারণ ডায়েরী দুটিতে তারা উল্লেখ করেন, ‘বিভিন্ন ভাবে অভিযোগপত্রটি প্রত্যাহার করার জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। এই কারণে আমি আমার নিজের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত বোধ করছি।’

ছাত্রীদের অভিযোগের অনুলিপি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান। তাদের নিরাপত্তার বিষয়ে প্রক্টর বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার ব্যাপারে প্রশাসন সবসময় সজাগ। আমরা ওই দুই শিক্ষার্থীকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেয়ার চেষ্টা করব।

এরআগে গত মঙ্গলবার দুপুরে আইইআরের সহকারী অধ্যাপক বিষ্ণুকুমার অধিকারীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি ও মানসিকভাবে উত্ত্যক্তের অভিযোগ করেন ৪র্থ বর্ষের এক শিক্ষার্থী। পরে ওই দিনই ২য় বর্ষের এক শিক্ষার্থী আইইআরের পরিচালকের সামনে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে উত্ত্যক্তের মৌখিক অভিযোগ করেন। পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে ডাক যোগে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও আইইআর পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। এঘটনায় মঙ্গলবার আইইআরে এক জরুরী সভা ডেকে বিষ্ণুকুমার অধিকারীকে ২য় ও ৪র্থ বর্ষের একাডেমিক কার্যক্রম থেকে সাময়িক অব্যহতি দিয়ে তদন্ত কমিটি করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •