স্টাফ রিপোর্টার, উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন ::  স্টাফ রিপোর্টার: মানববন্ধন চলাকালীন মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের মাটিতে স্বাধীনতা বিরোধীর নামে কোন স্থাপনা ও প্রতিষ্ঠান থাকতে পারবে না। তাই রাজশাহী আন্তর্জাতিক টেনিস কমপ্লেক্স থেকে রাজাকার জাফর ইমামের নাম অবিলম্বে সরিয়ে ফেলতে হবে। যত দিন না রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্স থেকে জাফর ইমামের নাম অপসারণ করা হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো। টেনিস কমপ্লেক্স থেকে জাফর ইমামের নাম অপসারণ না করলে এর জন্য যদি অনাকাক্সিক্ষত কোন ঘটনা ঘটে এর জন্য মুক্তিযোদ্ধারা দায়ি থাকবে না।

গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে রাজশাহী আন্তর্জাতিক টেনিস কমপ্লেক্স থেকে জাফর ইমামের নাম অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন চলাকালীন এক সমাবেশে মুক্তিযোদ্ধারা এসব কথা বলেন।

 

বক্তারা আরও বলেন, পাকিস্তানের দোসর জাফর ইমাম ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী মুসলিম লীগ নেতা আয়েন উদ্দিন ও আফাজ মুক্তারের একনিষ্ঠ ঘনিষ্ঠ সহচর। রাজশাহীতে যত হত্যাযজ্ঞ হয়েছে তাদের নেতৃত্বেই হয়েছে। অথচ আজকে অনেকেই মুক্তিযুদ্ধের শক্তির নাম ভাঙিয়ে তাকে আড়াল করার চেষ্টা করছেন। তাদের হুঁশিয়ার করে দিয়ে তারা বলেন, আপনারা আমাদের একেবারে বোকা ভাববেন না। আমরা এই রাজশাহীতে বড় হয়েছি। এ এলাকাতেই মুক্তিযুদ্ধ করেছি।

 

এলাকার মানুষ সবই দেখেছে। তাই প্রয়োজন হলে এলাকার মুক্তিকামী মানুষকে নিয়ে আমরা টেনিস কমপ্লেক্স থেকে জাফর ইমামের নাম মুছে দেবো। তাই অবিলম্বে টেনিস কমপ্লেক্স থেকে রাজাকার জাফর ইমামের নাম মুছে ফেলুন।

 

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ মহানগর কমান্ডের সাবেক কমান্ডার ডা. আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে এবং মুক্তিযোদ্ধা ও কবি প্রফেসর রুহুল আমিন প্রামানিকের পরিচালনায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ মহানগর কর্তৃক আয়োজিত উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সাবেক মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা জিনাতুন নেসা তালুকদার, মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার সফিকুর রহমান রাজা, প্রবীণ সাংবাদিক মুক্তিযোদ্ধা মুস্তাফিজুর রহমান খান আলম, ন্যাপ কমিউনিস্ট পার্টির গেরিলা বাহিনীর সংগঠক শিক্ষক নেতা শফিকুর রহমান বাদশা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের সভাপতি হাকিম আতাউর রহমান, সাবেক জেলার ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার সাহাদুল হক মাস্টার, সাবেক মহানগর ডেপুটি কমান্ডার মোহাম্মদ আলী কামাল, রবিউল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আব্দুস সামাদ, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক চৌধুরী, ন্যাপ কমিউনিস্ট পার্টির গেরিলা বাহিনী সমন্বয়ক অ্যাড. সাইদুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা ইয়াছিন আলী মোল্লা, বঙ্গবন্ধু পরিষদের মহানগর সাধারণ সম্পাদক কবি আরিফুল হক কুমার, মুক্তিযোদ্ধা এন্তাজুল হক বাবু প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •