নিজস্ব প্রতিবেদক,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন :: করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে দেশের ৬৮টি কারাগারে নেয়া হয়েছে সতর্কতা। এসব কারাগারে অবস্থানরত ৮৯ হাজার ৬০০ বন্দির জন্য নেয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। কারা কর্তৃপক্ষ দেশের ১৩টি কেন্দ্রীয় ও ৫৫টি জেলা কারাগারে থাকা নতুন বন্দিদের জন্য আলাদা কোয়ারেন্টিনের উদ্যোগ নিয়েছে।

এর ধারাবাহিকতায় রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারকেও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে করোনা ভাইরাসমুক্ত কারাগার গড়ার উদ্যোগ নিয়েছেন রাজশাহী কারাগারে নবনিযুক্ত জেল সুপার গিয়াস উদ্দিন।

কারাসুত্রে জানা যায়, রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে গড়ে প্রতিদিন ১৫০ থেকে ২০০ জন হাজতী কয়েদি আসে এবং বাহিরে যায়। এছাড়াও রাজশাহী কোর্টে হাজিরা থাকে প্রায় ৯০ থেকে ১১০ জন হাজতীর।

জেল সুপার গিয়াসউদ্দিন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের নিজস্ব প্রতিনিধিকে জানান – নতুন যেসব বন্দী ভেতরে প্রবেশ করছে, তাদের কমপক্ষে ১৪ দিন আলাদা করে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হচ্ছে। কোয়ারেন্টাইনে রাখার আগে নতুন বন্দীদের ইনফারেড থার্মোমিটার দিয়ে তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। কারাগারে আসা নতুন কোন বন্দি যদি জ্বর ও ঠান্ডা জনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন তাদের সরাসরি কারা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। যদিও এখন পর্যন্ত রাজশাহী কারাগারে কোন করোনা আক্রান্ত রোগীর খোঁজ পাওয়া যায়নি।

এছাড়া কারা ফটক দিয়ে প্রবেশের পর বন্দীদের হাত ধোয়া ও পরিষ্কারের জন্য পানি ও সাবানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। একইসঙ্গে কারাগারের অভ্যন্তরে প্রতিটি ওয়ার্ডে সাবান, হ্যান্ডওয়াশ ও স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এছাড়া বন্দিদের মধ্যে যাতে আতঙ্ক না ছড়ায়, সেজন্য চিকিৎসক ও কারা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে মোটিভেশন দেয়া হচ্ছে।

তিনি আরোও জানান – এছাড়াও বন্দীদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কারাগারের প্রতিটি ওয়ার্ডে ভিটামিন সি জাতীয় খাবার ও পুস্টি সমৃদ্ধ খাবার দেয়া হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •