বিশেষ বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় সন্মানিত পাঠক, আপনি কি উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের নিয়মিত পাঠক? আপনি কি এই পত্রিকায় লিখতে চান? কেন নয় ? সমসাময়িক যেকোনো বিষয়ে আপনিও ব্যক্ত করতে পারেন নিজের চিন্তা, অভিমত, পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ। স্বচ্ছ ও শুদ্ধ বাংলায় যেকোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ে  লিখে পাঠিয়ে দিতে পারেন ইমেইলে কিংবা ফোন করেও জানাতে পারেন আপনাদের।  আমাদের যে কোন সংবাদ জানানোর ৩টি মাধ্যম।🟥১। মোবাইল: ০১৭৭৭৬০৬০৭৪ / ০১৭১৫৩০০২৬৫ 🟥২। ইমেইল: upn.editor@gmail.com🟥৩। ফেসবুক : facebook.com/Uttorbongoprotidin  
আজ ১৩ মে ২০২১ বৃহস্পতিবার ৭:২৫ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English

বিনোদন প্রতিবেদক :: ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বরাবরই প্রচারের অন্তরালে থাকতে পছন্দ করেন বলিউডের বর্তমান সমযের সুপারহিট গায়ক অরিজিৎ সিং। বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে তাকে তার জীবনের প্রেম-বিচ্ছেদ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে প্রতিবারই অতি সন্তর্পণে তা এড়িয়ে গেছেন। তবে অনেকের হয়তো অজানা, অরিজিতের প্রেম কাহিনি সিনেমার থেকে কম রোমাঞ্চকর নয়। তার জীবনেও প্রেম এসেছে, ভেঙেছে। হয়েছে বিবাহ বিচ্ছেদও।

১৯৮৭ সালের ২৫ এপ্রিল মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জে জন্ম অরিজিতের। বাবা পাঞ্জাবি, মা বাঙালি। ছোট থেকেই সংগীতের প্রতি অসম্ভব টান ছিল। পণ্ডিত রাজেন্দ্রপ্রসাদ হাজারির কাছে তার সংগীতের প্রথম পাঠ। ২০০৫ সালে ‘ফেম গুরুকুল’ নামে এক রিয়ালিটি শোর মধ্য দিয়ে মুম্বইয়ে পা রাখেন অরিজিৎ। কিন্তু সেই শোতে বিজয়ী হতে পারেননি। লাইমলাইটেও যে চলে এসেছিলেন এমনটাও নয়।

অরিজিতের ভাগ্য বদলায় আরও বেশ কয়েক বছর পর ২০১০-১১ সাল নাগাদ। সংগীত পরিচালক প্রীতমের সহযোগী হিসেবে কাজ করা অরিজিৎ ক্রমশ পরিচিতি পেতে থাকেন সংগীতশিল্পী হিসেবেও। আজ তিনি বলিউডে সুপরিচিত, একই সঙ্গে সুপারহিট গায়ক। যে মানুষের গানে এত দরদ, গলায় এত আবেগ তার প্রেম কাহিনিতেও এসেছে নানা টুইস্ট।

নিজে মুখ না খুললেও শোনা যায়, প্রীতমের সঙ্গে মিউজিক প্রোগ্রামার হিসেবে কাজ করার সময়ে ‘ফেম গুরুকুল’-এর এক প্রতিযোগীকে বিয়ে করেন অরিজিৎ। কিন্তু সেই বিয়ে সুখের হয়নি। অল্প দিনেই তাদের সংসার ভেঙে যায়। ২০১৪ সাল অরিজিতের কেরিয়ার ও ব্যক্তিগত জীবনেও গুরুত্বপূর্ণ এক বছর। ‘গুন্ডে’, ‘টু স্টেটস’-এর মতো সুপারহিট ছবিতে গান গেয়ে অরিজিৎ তখন সুপারহিট। ওই বছরেই আবার বিয়ে করেন অরিজিৎ।

এবারের পাত্রী কোয়েল রায়। কে এই কোয়েল? একটি সাক্ষাৎকারে অরিজিৎ জানিয়েছিলেন, কোয়েল তার ছোটবেলার বন্ধু। তারা একই স্কুলে পড়তেন। শোনা যায়, কোয়েলই নাকি অরিজিতের ‘লাভ অব লাইফ’। এও জানা যায়, অরিজেতের মতো কোয়েলও বিবাহবিচ্ছিন্না। তার প্রথম পক্ষের এক সন্তানও রয়েছে। কিন্তু কোয়েলেরও প্রথম বিয়ে সুখের হয়নি। ঠিক যেমনটা সুখের হয়নি অরিজিতের প্রথম বিয়ে।

অবশেষে অনেক বাধা, অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে ২০১৪ সালে এক হন ছোটবেলার দুই বন্ধ অরিজিৎ ও কোয়েল। অরিজিৎই নাকি প্রেম প্রস্তাব দিয়েছিলেন প্রথমে। কোয়েল রাজি হয়ে যান। বাঙালি মতে বিয়ে করেন দুজনে। কিন্তু গ্ল্যামারের আলো, চাকচিক্য কোনো দিনই টানেনি স্বামী-স্ত্রীকে।

অরিজিৎ জানান, পাবলিক অ্যাপিয়ারেন্সে বেজায় অরুচি তার স্ত্রীর। ফ্ল্যাশলাইটের ঝলকানি, সেলফি তোলার ভিড় থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখতেই পছন্দ করেন কোয়েল। দ্বিতীয় সংসারে আরেকটি সন্তান হয় কোয়েলের। অরিজিৎ এবং দুই সন্তান নিয়ে অন্তরালেই থেকে যেতে চান এই বাঙালি মেয়ে।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


আজ ২৫ জুলাই ২০২০ শনিবার ৫:৫৯ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English
© All rights reserved © 2016-2021 24x7upnews.com - Uttorbongo Protidin