রাজশাহীতে ৪৬৬ মণ্ডপে চলছে দুর্গাপূজা প্রস্তুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন :: সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আগামী ২২ অক্টোবর থেকে এ পূজা শুরু হবে।

করোনা ভাইরাসের কারণে এবার দুর্গোৎসবের চির পরিচিত আমেজ থাকছে না। এবার উৎসবের সব ক্ষেত্রেই থাকছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কড়া নির্দেশ। তবে দুর্গাপূজার প্রস্তুতিতে কোনো ঘাটতি নেই। রাজশাহীতে বেশ জোরেশোরে চলছে দেবী বন্দনার প্রস্তুতি।

চলছে প্রতিমা তৈরির কাজও। ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রতিমাশিল্পীরা।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, এবার মহালয়া হয় ১৭ সেপ্টেম্বর। কিন্তু পঞ্জিকার হিসাবে এবার আশ্বিন মাস ‘মল মাস’, মানে অশুভ মাস। সে কারণে এবার আশ্বিনে দেবীর পূজা হবে না। পূজা হবে কার্তিক মাসে। সেই হিসাবে এবার দেবী দুর্গা ‘মর্ত্যে আসবেন’ মহালয়ার ৩৫ দিন পরে। তাই আগামী ২২ অক্টোবর মহাষষ্ঠী তিথিতে হবে বোধন। পরদিন সপ্তমী পূজার মাধ্যমে শুরু হবে দুর্গোৎসবের মূল আচার অনুষ্ঠান।

আগামী ২৬ অক্টোবর মহাদশমীতে বিসর্জনে শেষ হবে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

জানা গেছে, রাজশাহী জেলা ও মহানগর মিলে ৪৬৬টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে জেলায় ৪০০টি ও নগরে ৬৬টি মণ্ডপে এ পূজা হবে। আগের তুলনায় এবার মহানগরে মণ্ডপের সংখ্যা কম।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজশাহীতে মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে দুর্গাপূজার ব্যাপক প্রস্তুতি। পূজা মণ্ডপগুলোতে কে কত সুন্দরভাবে প্রতিমা তৈরি করতে পারে তার জন্য ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রতিমাশিল্পীরা। ইতোমধ্যে কিছু কিছু পূজা মণ্ডপে প্রতিমার অবকাঠামোগত মাটির কাজ শেষ পর্যায়ে। তবে এ প্রতিমাগুলোতে রংয়ের কাজ করা হবে পূজার কিছুদিন আগে। আবার কোথাও কোথাও চলছে প্যান্ডেল তৈরি আর সাজসজ্জার কাজ।

নগরের প্রতিমা কারিগর সনাতন কুমার উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনকে বলেন, দুই মাস আগেই প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু করেছি। এবার ১০টি প্রতিমার অর্ডার পেয়েছি। কয়েকদিন পর থেকে আমরা প্রতিমা রং করা শুরু করবো।

জানতে চাইলে রাজশাহী হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনকে জানান, এবারের পূজায় স্বাস্থ্যবিধির ওপরে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এজন্য পূজার ব্যবস্থাপনায় কিছু পরিবর্তন হতে পারে। জেলায় প্রায় ৪০০টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এমন তথ্য তাদের কাছে এসেছে। এছাড়া নগরে ৬৬টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা হবে।

তিনি আরও বলেন, পূজা আয়োজনে এক মাসেরও কম সময় রয়েছে। মণ্ডপগুলোতে বেশ জোরেশোরে প্রস্তুতি চলছে। পূজা শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ার লক্ষ্যে আমরা জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সব মণ্ডপের দায়িত্বশীলদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। আশা করা যাচ্ছে এবার কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পূজা উদযাপিত হবে।

রাজশাহীর হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি অনিল কুমার সরকার বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজার আয়োজন করাটাই আমরা চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। এজন্য ২৬টি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সবাইকে নির্দেশনাগুলো কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  • 79
  • 58
  • 44
  • 19
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    200
    Shares

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।