আইফোনের পরিনতি খুব খারাপ হতে যাচ্ছে লাইফস্টাইল রিপোর্ট, উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন

স্টিভ জবসের হাত ধরে ২০০৭ সালে বাজারে প্রথমবারের মতো আসে আইফোন। অ্যাপল ইনকর্পোরেশনের এই স্মার্টফোন তাক লাগিয়ে দেয় পুরো বিশ্বকে। ধারণা পালটে দেয় মোবাইল ফোনের। তবে আইফোন গ্রাহকদের কাছে হয়ে উঠছে ‘একঘেয়েমি’র কারণ। পরিণতি হতে পারে ফিনল্যান্ডের নোকিয়ার মতো।

প্রযুক্তি বিশ্লেষক এবং সাধারণ স্মার্টফোন গ্রাহকদের একটি বড় অংশ মনে করেন যে, অ্যাপলের আইফোনগুলোতে আর কোনো নতুনত্ব নেই। ব্র্যান্ড ভ্যালু, গোপনীয়তা বিষয়ক সফটওয়্যার অথবা রিসেলিং ভ্যালু বেশি থাকার মতো কারণে এখনও বিশ্বজুড়ে ‘আইফোন হাব’ থাকলেও গ্রাহকেরা মনে করছেন সাম্প্রতিককালের ডিভাইসগুলোর মধ্যে একে অপরের সাথে খুব একটা পার্থক্য নেই। উদাহরণ দিয়ে বললে, আইফোন ৮ এবং আইফোন এক্স এর মধ্যে প্রযুক্তিগত খুব একটা পার্থক্য নেই। আবার আইফোন এক্স এর চেয়ে ক্যামেরার দিক থেকে আইফোন ১১ এগিয়ে থাকলেও যুগের সাথে তাল মিলিয়ে সেটিতে রাখা হয়নি ফাইভ-জি প্রযুক্তি। অন্যদিকে আইফোন ১২-তে ফাইভ-জি থাকলেও এর বাইরে আর খুব একটা পার্থক্য নেই ১১ থেকে।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, স্মার্টফোনের বাজার দখলের আগে নোকিয়া যেমন অনেকটা ‘গা ছাড়া’ ভাবে ছিল তেমন অবস্থা হয়েছে আইফোনের। নিজেদের ডিভাইসে প্রযুক্তিগত ইনোভেশনের দিক থেকে অ্যান্ড্রয়েডের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে অ্যাপল। অন্যদিকে গুগল মালিকানাধীন অ্যান্ড্রয়েডের তুলনায় নিজেদের আপডেটগুলো দেরিতে দেওয়ায় আইফোনের ইন্টারফেস অনেকটাই অ্যান্ড্রয়েড থেকে ‘কপি’ করা বলে মনে করেন অ্যাপল সমালোচকেরা।

এমন নানাবিধ কারণে আইফোনের নতুন নতুন মডেল বাজারে আসার সাথে ব্র্যান্ডটির প্রতি গ্রাহকদের আগ্রহ আগের তুলনায় কমতে দেখা গেছে

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  • 68
  • 32
  • 44
  • 12
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    156
    Shares
Tags:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।