বিশেষ বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় সন্মানিত পাঠক, আপনি কি উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের নিয়মিত পাঠক? আপনি কি এই পত্রিকায় লিখতে চান? কেন নয় ? সমসাময়িক যেকোনো বিষয়ে আপনিও ব্যক্ত করতে পারেন নিজের চিন্তা, অভিমত, পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ। স্বচ্ছ ও শুদ্ধ বাংলায় যেকোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ে  লিখে পাঠিয়ে দিতে পারেন ইমেইলে কিংবা ফোন করেও জানাতে পারেন আপনাদের।  আমাদের যে কোন সংবাদ জানানোর ৩টি মাধ্যম।🟥১। মোবাইল: ০১৭৭৭৬০৬০৭৪ / ০১৭১৫৩০০২৬৫ 🟥২। ইমেইল: upn.editor@gmail.com🟥৩। ফেসবুক : facebook.com/Uttorbongoprotidin  
আজ ১২ মে ২০২১ বুধবার ৩:৪৫ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় জুতা পায়ে শহীদ মিনারে শিক্ষক

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় জুতা পায়ে শহীদ মিনারে শিক্ষক
সংগৃহীত ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসার বিজ্ঞান শাখার শিক্ষকদের নিয়ে ‘উদ্ভাবনে মজার বিজ্ঞান’র যাত্রা শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার ওই উপজেলার নওদাবাস কালীমোহন তফশিলী উচ্চ বিদ্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এর যাত্রা শুরু হয়। ওই অনুষ্ঠানে ফটোসেশনে দেখা যায়, অনেকেই শহীদ মিনারের সিঁড়িতে জুতা পায়ে উঠেছেন। এমন ছবি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখা দিয়েছে বিতর্ক।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাজ্জাদ হোসেন সাগরের দাবি, জুতা পায়ে শহীদ মিনারের সিঁড়িতে উঠা দোষের কিছু নয়। তবে বেদীতে উঠা ঠিক নয়। আর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক রোকনুরজ্জামান সোহেল বলছেন, তারা জুতা পায়ে শহীদ মিনারের সিঁড়িতে উঠে কাজটা ঠিক করে নাই। তবে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলছেন, জুতা পায়ে শহীদ মিনারের সিঁড়ি বা বেদীতে না উঠা এটা আমাদের শিষ্টাচার। এটা মানা উচিত।

জানা গেছে, হাতীবান্ধা উপজেলার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসার বিজ্ঞান শাখার শিক্ষকদের নিয়ে নওদাবাস কালীমোহন তফশিলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ‘উদ্ভাবনে মজার বিজ্ঞান’ নামে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে নওদাবাস ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশ্বিনী কুমার বসুনিয়া, সাবেক উপজেলা ভাইচ চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবদলের সম্পাদক সামসুজ্জামান সেলিম, সাবেক অধ্যক্ষ নুরুজ্জামান, নওদাবাস কালীমোহন তফশিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক আহবায়ক সাজ্জাদ হোসেন সাগরসহ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও প্রধান শিক্ষক, বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের কোনো এক সময় তারা ওই বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে গিয়ে ফটোসেশন করেন। যা পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করা হয়েছে। সেই ছবিতে দেখা যায় বেশ কয়েকজন শিক্ষক জুতা পায়ে শহীদ মিনারের সিঁড়িতে উঠে ফটোসেশনে অংশ নিয়েছেন। এমন ছবি দেখে শুরু হয় নানা আলোচনা-সমালোচনা।

এ প্রসঙ্গে নওদাবাস কালীমোহন তফশিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাজ্জাদ হোসেন সাগর বলেন, জুতা পায়ে শহীদ মিনারের সিঁড়িতে উঠা দোষের কিছু নয়। তবে বেদীতে উঠা ঠিক নয়। সিড়ি আর বেদী এক নয়। আমরা তো মসজিদের সিঁড়িতে জুতা রেখে মসজিদে প্রবেশ করি। তার এ যুক্তি মানতে নারাজ হাতীবান্ধা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক রোকনুজ্জামান সোহেল।

তিনি বলেন, তারা শহীদ মিনারের সিঁড়িতে উঠে ছবি তোলা মোটেও ঠিক করে নাই। তাদের মনে রাখার উচিত ছিলো, শহীদ মিনার আমাদের কতটা শ্রদ্ধার স্থান। একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকের উপস্থিতিতে এমন পরিস্থিতি দুঃখজনক।

হাতীবান্ধা উপজেলা মুক্তিযুদ্ধকালীন সংগ্রাম কমিটি’র সম্পাদক ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলেন, জুতা পায়ে শহীদ মিনারের সিঁড়িতে উঠা ঠিক কি না তা নিয়ে আমি কথা বলবো না। আমি বলবো, আমরা শহীদ মিনারের সিঁড়ি বা বেদী কোনোটাইতেই জুতা পায়ে উঠি না। এটা আমাদের শিষ্টাচার। আমরা যুগে যুগে তা মেনে চলে আসছি। যা আমাদের মানা উচিত বলে আমি মনে করি।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share


আজ ২১ জানুয়ারী ২০২১ বৃহস্পতিবার ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English
© All rights reserved © 2016-2021 24x7upnews.com - Uttorbongo Protidin