বিশেষ বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় সন্মানিত পাঠক, আপনি কি উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের নিয়মিত পাঠক? আপনি কি এই পত্রিকায় লিখতে চান? কেন নয় ? সমসাময়িক যেকোনো বিষয়ে আপনিও ব্যক্ত করতে পারেন নিজের চিন্তা, অভিমত, পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ। স্বচ্ছ ও শুদ্ধ বাংলায় যেকোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ে  লিখে পাঠিয়ে দিতে পারেন ইমেইলে কিংবা ফোন করেও জানাতে পারেন আপনাদের।  আমাদের যে কোন সংবাদ জানানোর ৩টি মাধ্যম।🟥১। মোবাইল: ০১৭৭৭৬০৬০৭৪ / ০১৭১৫৩০০২৬৫ 🟥২। ইমেইল: upn.editor@gmail.com🟥৩। ফেসবুক : facebook.com/Uttorbongoprotidin  
আজ ১০ মে ২০২১ সোমবার ১১:২৬ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English

স্টাফ রিপোর্টার :: রাজশাহীতে প্রতিকার চেয়ে বোয়ালিয়া থানা পুলিশের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী এক পরিবার।

আজ ২৩ মার্চ দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর অনুরাগ কমিউনিটি সেন্টারে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে ঐ ভুক্তভোগী পরিবার।

ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে
লিখিত বক্তব্যে নিউমার্কেট এলাকার অধিবাসী শিরিন সুলতানা জানান- ২০১৮ সাল থেকে আমাদের পারিবারিক জামি জায়গার ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে নিজেদের মধ্যে অমিল চলছিল ২০২০ সালে সেই বিষয়টি বড় আকার ধারন করে। স্থানিয় কাউন্সিলর সহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা সেই জায়গার উপরে থাকা দোকান চারভাগে বিভক্ত করে দেন।

স্থানীয়দের শালিসি বৈঠকে সকল পক্ষ সম্মতি দিয়ে সাক্ষর করলেও পরবর্তীতে মমতাজ নাহার শাজাহান, রেজাউল করিম জুয়েল, শামিমা সুলতানা শিউলি,এজাজুল করিম রাসেল নামের পক্ষ কোন প্রকার শালিসি না মেনে তাদের ইচ্ছে মত দোকান গোদাগাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম কে ভাড়া দেন।

উল্লেখিত জায়গার উপর কোন প্রকার কাজ করা যাবেনা মর্মে আদালত একটি ১৪৪ ধারার আদেশ জারি করেন।কিন্তু আদালতের আদেশ অমান্য করে মমতাজ নাহার আবারো সেই জায়গার উপর কাজ শুরু করেন।

এ বিষয়ে আবারো অভিযোগ দিলে ওসি বলেন আমাদের তেমন কিছু করার নেই, তিনি বলেন আমরা লিখিত আকারে কোর্টে পাঠাব। আপনারা ১৪৫ ধারার আদেশ কোর্ট থেকে নিয়ে আসুন।

আমরা পরবর্তীতে আদালতের স্মরনাপন্ন হয়ে ১৪৫ এর আদেশ নিয়ে আসি। তার পরেও সেই জায়গার উপর কাজ করতে থাকেন তারা।

আমরা বিষয়টি আবারোও বোয়ালিয়া থানাকে আবারো অবগত করলে ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মণ বলেন এই বিষয়ে আমাদের কোন করনীয় নেই।

কিন্তু আদালতের আদেশ মতে সেই জায়গার সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধের বিষয়ে ওসির সহযোগিতা চাইলে ওসি বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করেন আমাকে। উল্টো বাড়াবাড়ি নিয়ে সমস্যা হবে বলে জানিয়ে দেন।

জাহাঙ্গীর আলম দোকান ঘর ভাড়া নিয়েই ঘরের ভেতরে ভাংচুরসহ কার্যক্রম শুরু
করেন। থানা থেকে কোনপ্রকার সেবা না পেয়ে আমি ২১ মার্চ জরুরি সেবার জন্য ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করলে উপরের নির্দেশে বোয়ালিয়া মডেল থানার এসআই শরিফুল উল্লেখিত জায়গার উপর এসে সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেন।

শিরিন সুলতানা আরো বলেন এই নিয়ে এ আই শরিফুলকে ওসি অনেক ভাবে রাগারাগি করেন। পরে ওসির নির্দেশে আবারো উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম দোকান ঘরে কাজ শুরু করেন।

পরের দিন ২১ মার্চ আবারো শিরিন সুলতানা ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করলে সেখান থেকে বোয়ালিয়া মডেল থানার ডিউটি অফিসার কে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে পুলিশ আসেনি বা কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। শিরিন সুলতানা বলেন ৭বার ফোন করেও পুলিশ আসেনি।

তিনি বলেন ২২ মার্চ আমি ও আমার মা রাজশাহী পুলিশ কমিশনারের নিকট যাই দেখা করে লিখিত অভিযোগ দিয়ে আসি। সেখানে পুলিশ কমিশনার ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সহকারি পুলিশ কমিশনার বোয়ালিয়াকে নির্দেশনা দেন। কিন্তু আমরা আসার পরে আর কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আদালতের আদেশ সহ সকল বিষয় উপেক্ষা করে দোকান ঘরের কাজ করায় এলাকাবাসিদের মধ্যে ক্ষোভের সৃস্টি হয়েছে।

বোয়ালিয়া থানা সুত্রে জানা গেছে এই ঘটনার নিস্পত্তি নিয়ে একাধিক বার স্থানীয়রা বসেও প্রতিপক্ষের উদাসিনতার কারনে কোন সুরহা সম্ভব হয়নি।

শিরিন সুলতানার মা বলেন বর্তমান দোকানের ভাড়াটিয়া জাহাঙ্গীর আলমের অসহযোগীতার কারনেই শিরিন সুলতানার পরিবার অসহায় হয়ে পড়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  • 492
  • 305
  • 284
  • 38
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1.1K
    Shares


আজ ২৩ মার্চ ২০২১ মঙ্গলবার ১০:৫৭ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English
© All rights reserved © 2016-2021 24x7upnews.com - Uttorbongo Protidin