বিশেষ বিজ্ঞপ্তি :
সুপ্রিয় সন্মানিত পাঠক, আপনি কি উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের নিয়মিত পাঠক? আপনি কি এই পত্রিকায় লিখতে চান? কেন নয় ? সমসাময়িক যেকোনো বিষয়ে আপনিও ব্যক্ত করতে পারেন নিজের চিন্তা, অভিমত, পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ। স্বচ্ছ ও শুদ্ধ বাংলায় যেকোনো একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ে  লিখে পাঠিয়ে দিতে পারেন ইমেইলে কিংবা ফোন করেও জানাতে পারেন আপনাদের।  আমাদের যে কোন সংবাদ জানানোর ৩টি মাধ্যম।🟥১। মোবাইল: ০১৭৭৭৬০৬০৭৪ / ০১৭১৫৩০০২৬৫ 🟥২। ইমেইল: upn.editor@gmail.com🟥৩। ফেসবুক : facebook.com/Uttorbongoprotidin  
আজ ১০ মে ২০২১ সোমবার ১১:২৬ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English

এবার নিয়োগ বাণিজ্য নিয়ে মরিয়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য স্টাফ রিপোর্টার। উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন

এবার নিয়োগ বাণিজ্য নিয়ে মরিয়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য
এবার নিয়োগ বাণিজ্য নিয়ে মরিয়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) সব ধরনের নিয়োগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও বাণিজ্যের জন্য এডহক ভিত্তিতে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহান। ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য উপাচার্য এ ধরনের কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতিবিরোধী শিক্ষকরা। আজ রোববার দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমপ্লেক্সের সামনে আমতলায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন শিক্ষকরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দুর্নীতিবিরোধী শিক্ষক সমাজের আহ্বায়ক অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম টিপু বলেন, ‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কার্যকাল আগামী ৬ মে, ২০২১ তারিখে শেষ হতে যাচ্ছে। মেয়াদের শেষে এসে বর্তমান প্রশাসন বরাবরের মতোই চরম অব্যবস্থাপনা, অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছে। চাকরি প্রত্যাশী এবং স্বার্থান্বেষী মহলের চাপের মুখে ও দুর্নীতির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। এতে করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃত্বহীন হয়ে পড়েছে। ফলে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিগণ নিজেদের চাপ প্রয়োগকারীদের ও পদলেহনকারীদের স্বার্থরক্ষায় অনিয়ম ও দুর্নীতি করে শেষ সময়ে অবৈধ আর্থিক সুবিধা হাতিয়ে নিতে সর্বক্ষণ ব্যস্ত রয়েছে। অথচ জনগণের অর্থে পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থের বিষয়টি তারা থোড়াই কেয়ার করছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘সব ধরনের নিয়োগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও বর্তমান প্রশাসন নিয়োগ-বাণিজ্যের জন্য এডহকভিত্তিতে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ প্রদানে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। মেয়াদের শেষ পর্যায়ে করোনাকালীন সম্পূর্ণ বন্ধ ক্যাম্পাসে উপাচার্য কর্তৃক তড়িঘড়ি করে এসব আইনবহির্ভূত টেন্ডার নির্মাণ, মেরামতী ও সংস্করণ কাজ, এডহক নিয়োগ ইত্যাদি বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার ও জনমনে নানা প্রশ্নের উদ্রেক করছে। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা ও গৌরবের বিরুদ্ধে এটি এক গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ বলে আমরা বিশ্বাস করি।

এই অধ্যাপক আরও বলেন. ‘মেয়াদের শেষ সময়ের সকল অবৈধ কাজ ও দুর্নীতিকে উপাচার্য অত্যন্ত চাতুরতার সাথে দাপ্তরিকভাবে বৈধ করতে আজ ২ মে ফাইন্যান্স কমিটি এবং ৪ মে সিন্ডিকেট সভা ডেকেছেন। জনশ্রুতি রয়েছে যে, উপাচার্য এ সভার মাধ্যমে অনেক সংখ্যক এডহক নিয়োগ দিতে চেষ্টা চালাচ্ছেন।’

আগামী ৬ তারিখ উপাচার্যের মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ধরনের কার্যক্রম স্থগিত রাখার জন্য আহ্বানও জানান তিনি। সংবাদ সংবাদ সম্মেলনে প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্যরা ছাড়াও বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন-
  • 202
  • 102
  • 47
  • 12
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    363
    Shares


আজ ২ মে ২০২১ রবিবার ১০:৫৬ অপরাহ্ন রাজশাহী,বাংলাদেশ ।। ইংরেজীতে পড়ুন উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন Bengali Bengali English English
© All rights reserved © 2016-2021 24x7upnews.com - Uttorbongo Protidin